লঙ্কান সিংহদের হারালো বাংলাদেশের বাঘেরা

বিডিকষ্ট ডেস্ক

এশিয়া কাপে নিজেদের তৃতীয় ম্যাচে ২৩ রানে শ্রীলঙ্কাকে হারিয়েছে বাংলাদেশ। এবারই প্রথম টি-টোয়েন্টিতে লঙ্কানদের বধ করলো মাশরাফি বাহিনী। আগের চার ম্যাচের চারটিতেই বরণ করতে হয়েছিলো হার। প্রথমবারের মতো টি-টোয়েন্টিতে হারিয়ে এশিয়া কাপের ফাইনালের পথে আরো একধাপ এগিয়ে গেলেন মাশরাফিরা।

 

bangladesh-beat-sri-lanka-in-twenty20-for-first-time-in-history

 

এ দিন প্রথম ইনিংসে ব্যাটিংয়ে নেমে ১৪৭ রান করে বাংলাদেশ। সর্বোচ্চ ৮০ রান আসে সাব্বিরের ব্যাট থেকে। বাংলাদেশের ‘টি-টোয়েন্টি স্পেশালিস্ট’ খ্যাত এই ব্যাটসম্যানের এটিই ক্যারিয়ার সেরা ইনিংস। ৮০ রানের এই ইনিংসটি খেলার পথে ১০টি চার ও তিনটি ছয় মারেন সাব্বির। দলীয় মাত্র ২৬ রানে তিন উইকেট পড়ে যাওয়ার পরও নিজেকে দারুণভাবে ধরে রাখেন তিনি। খেলত থাকেন একের পর এক দুর্দান্ত সব শট।

তার ব্যাটে ভর করেই রোববার প্রায় দেড়শ রান করে বাংলাদেশ। এ ছাড়া সাকিব আল হাসানের ব্যাট থেকে আসে ৩২ রান। ২৩ রান করেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। মাত্র ১২ বলে এ রান করেন গত ম্যাচের সেরা পুরস্কার পাওয়া এই অলরাউন্ডার।

এই তিনজন রান পেলেও ব্যর্থ ছিলেন দুই ওপেনার সৌম্য সরকার ও মোহাম্মদ মিঠুন। দলীয় রান দুই হতে না হতেই বিদায় নেন দুই ওপেনার। তাদের মতো ব্যর্থ ছিলেন মুশফিকও। তারপরও দলের রান চ্যালেঞ্জিং পর্যায়ে সাব্বির, সাকিব ও রিয়াদের নির্ভরতায়।

পরে জবাব দিতে নেমে দ্বিতীয় উইকেটের ৫৬ রানের জুটির পরও হেরে যায় লঙ্কানরা। ২০ রানে প্রথম উইকেট এবং ৭৬ রানের দ্বিতীয় উইকেট হারায় তারা। তখনও ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ লঙ্কানদের হাতে। কিন্তু ১০০ রান পুরো করার আগে আরো তিন উইকেট হারিয়ে বসে তারা। ম্যাচ থেকে লঙ্কানদের ছিটকে পড়া নিশ্চিত হয় তখনই।

প্রথম পাঁচ উইকেটের দুটিই নেন সাকিব। ৫৬ রানের দ্বিতীয় উইকেট জুটিটা ভাঙেন রিয়াদ। রিয়াদের এনে দেয়া ব্রেক থ্রোর উপর ভর করেই ম্যাচে ফিরে আসতে শুরু করে বাংলাদেশ। যেখান থেকে আর পিছনে ফিরে তাকানোর কিছু ছিলো না মাশরাফিদের।

শ্রীলঙ্কার হয়ে সর্বোচ্চ ৩৭ রান করে ওপেনার দিনেশ চান্দিমাল। দারুণ চেষ্টা ছিলো শেহান জয়সুরিয়ার ব্যাটেও। কিন্তু মিরপুরে এ দিন সব ছিলো মাশরাফিদের পক্ষে। ফলে লঙ্কানদের শুরুর প্রচেষ্টা ব্যর্থ হয়ে যায় বাংলাদেশের দলীয় বোঝাপড়ার সামনে। ফর্ম নিয়ে দুশ্চিন্তায় থাকা সাকিব এ দিন খোলস ছেড়ে বেরিয়ে আসার ইঙ্গিত দিয়েছেন। ৩২ রান করার পর দুটি উইকেটও নেন তিনি।

চার উইকেট হাতে নিয়ে শেষ ওভারে জেতার জন্য লঙ্কানদের দরকার ছিলো ৩২ রান। আল আমিন বোলিংয়ে এসে প্রথম তিন এক রান দিয়ে নিয়ে নেন দুউ উইকেট! ম্যাচ জেতার সম্ভাবনা থেকে শ্রীলঙ্কা তখন ছিটকে গেছে কয়েক সহস্র আলোক বর্ষ কিংবা তার চেয়েও বেশি দূরে। শেষ পর্যন্ত বাংলাদেশ জিতে যায় ২৩ রানে।

 

 

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Anti-Spam Quiz: