Prince

ব্যথানাশকে মৃত্যু হয়েছে প্রিন্সের!

সদ্য প্রয়াত জনপ্রিয় আমেরিকান গায়ক প্রিন্সের [পুরো নাম প্রিন্স রজারস নেলসন] শরীরে ব্যথানাশক ওপিওয়িড ওষুধের অস্তিত্ব  পেয়েছেন তদন্ত সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা। এমনকি তার মিনোসোটার বাড়িতেও এ ওষুধটি পাওয়া গেছে বলে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন। তবে প্রিন্সের মৃত্যুর সঠিক কারণ কী তা জানতে তার পোস্টমর্টেম রিপোর্টের অপেক্ষায় আছেন সংশ্লিষ্টরা। খবর সিএনএন’র

গত ২১ এপ্রিল মিনেসোটার নিজ বাড়িতে মৃত্যুবরণ করেন জনপ্রিয় গায়ক প্রিন্স। তার বয়স হয়েছিল ৫৭ বছর। ওষুধ ‘ওপিওয়িড’ সাধারণত ব্যথার চিকিৎসায় ব্যবহার করা হয়। প্রিন্সের মৃত্যুর ঘটনা তদন্তে সহায়তার লক্ষ্যে তদন্তকারীরা ইউএস ড্রাগ ইনফোর্সমেন্ট এডমিনিস্ট্রেশনকেও কাজে লাগিয়েছেন। একটি সূত্রের বরাত দিয়ে খবরে বলা হয়।

ওই কর্মকর্তা আরো জানান, তদন্তকারীদের ধারণা প্রিন্সের মৃত্যুর এক সপ্তাহ আগে ইলিনয়সে তার বিমানের জরুরি অবতরণের পেছনেও হয়তো উক্ত ওষুধের ভূমিকা থাকতে পারে। ওষুধের প্রতিক্রিয়ার ফলেই হয়তো তার শরীরে সমস্যা দেখা দিয়েছিল। এদিকে, প্রিন্সের মরদেহে পোস্টমর্টেম ও বিষক্রিয়াসংক্রান্ত পরীক্ষা সম্পন্ন হয়েছে। তবে এ সংক্রান্ত ফলাফল এখনো পাওয়া যায়নি। তা পেতে আরো প্রায় এক সপ্তাহ লাগতে পারে। প্রিন্সের মৃত্যু ঠিক কী কারণে তা জানতে এ দুটি পরীক্ষার ফল জরুরি যা হাতে পাওয়ার অপেক্ষায় আছেন তদন্তকারীরা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Anti-Spam Quiz: