9a319d954bc3eff9ff7aa7fc80295e5e-Untitled-11

কোনালের হাতে ঝালমিষ্টি

বিডিকষ্ট ডেস্ক

 

ছোটবেলাতেই কুয়েত চলে যান সংগীতশিল্পী কোনাল। কারণ, বাবা মনির হোসেনের চাকরি। ২০০৯ সালে ঢাকা ফিরে আসেন। মা সায়মা মনির আর ছোট ভাই মনোময় মনিরের সঙ্গে কোনাল এখন থাকেন ঢাকার মোহাম্মদপুরে। ছোটবেলার ঈদে কোনাল মায়ের রান্না খেতে খুব ভালোবাসতেন। কিন্তু এখনকার ঈদে কি কোনাল রান্না করতে পছন্দ করেন? বললেন, ‘কুয়েতে থাকতেও আমি রান্না করতাম। ঈদের সময় আমি খুব বেশি ভালোবাসতাম ফিশ কাটলেট ও বিফ কাটলেট বানাতে।’
কোনাল চ্যানেল আইয়ের ক্রিয়েটিভ এক্সিকিউটিভ হিসেবে কাজ করছেন। ঈদের নামাজ পড়তে চ্যানেল আইতে চলে যান। নামাজ শেষে সেখানে সহকর্মীদের সঙ্গে দেখা করেই বাসায় ফিরে আসেন। দুপুর পর্যন্ত বাসায় আসা অতিথি আর বন্ধুবান্ধব নিয়ে ব্যস্ত থাকেন। এরপর বিকেলে আত্মীয়স্বজনের বাসায় ঘুরতে বের হন বলে জানালেন। কোনাল বলেন, ‘বাবা যেহেতু এখনো দেশের বাইরে, তাই তাঁর জন্য মনটা খুব খারাপ থাকে। ফোনে বারবার কথা বলি।’
ঈদের কেনাকাটা এরই মধ্যে শুরু হয়ে গেছে কোনালের। জানালেন, ঈদের দিন শাড়ি ও সালোয়ার-কামিজ দুটোই পরতে পছন্দ করেন। কোথায় যাবেন তার ওপর নির্ভর করে আরামদায়ক পোশাক বেছে নেন 11নকশার পাঠকদের জন্য কোনাল দুটি খাবারের রেসিপি দিয়েছেন।

চিকেন মাজবুস
চিকেন মাজবুসউপকরণ: ম্যারিনেটের জন্য: মুরগি ৪ টুকরা, দই ১ কাপ, আদাবাটা ১ টেবিল চামচ, রসুনবাটা ১ টেবিল চামচ, গরমমসলা গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, লাল মরিচ গুঁড়া ১ টেবিল চামচ, ভেজিটেবল অয়েল ২ টেবিল চামচ ও লবণ পরিমাণমতো।
রান্নার জন্য: বাসমতি চাল ৩ কাপ, মুরগির স্টক ৫ কাপ, টমেটো পেস্ট আধা কাপ, কাটা টমেটো ১ কাপ, মাঝারি পেঁয়াজ ২টি, মরিচ কয়েকটি, তেজপাতা ২টি, গোলমরিচ ১ টেবিল চামচ, এলাচ ৫টা, দারুচিনি ৩ থেকে ৫ টুকরো, রোদে শুকানো লেবু ১টা, ছেঁচা রসুন ৫টা, আদাকুচি ১ টেবিল চামচ, ভেজিটেবল অয়েল সিকি কাপ, ঘি আধা কাপ, জিরাগুঁড়া আধা টেবিল চামচ, ধনেগুঁড়া আধা টেবিল চামচ, পুদিনাপাতা ৫ থেকে ৬টা ও লাল মরিচের গুঁড়া আধা টেবিল চামচ।
প্রণালি: ম্যারিনেটের সব উপাদান মুরগির সঙ্গে ভালো করে মেখে মুরগিগুলো অন্তত আট ঘণ্টা পর্যন্ত ফ্রিজে রেখে দিন। এরপর একটি পাত্রে তেল ও ঘি দিন। তেল একটু গরম হলে তাতে এলাচ, দারুচিনি, গোলমরিচ, তেজপাতা ছেড়ে দিয়ে নাড়ুন। হালকা বাদামি হয়ে এলে তাতে আদা-রসুন দিন। একটু নেড়ে পেঁয়াজ ও শুকনো লেবু দিয়ে দিন। পেঁয়াজ সোনালি হয়ে গেলে তাতে ম্যারিনেট করা মুরগি দিয়ে নাড়ুন। মুরগি ভাজা ভাজা হলে তাতে টমেটো পেস্ট, কাটা টমেটো, মরিচ, ধনেগুঁড়া, জিরাগুঁড়া এবং শুকনা মরিচের গুঁড়া দিয়ে কষিয়ে নিন। মাংস অর্ধেক কষানো হয়ে গেলে তাতে এক কাপ মুরগির স্টক দিন। কিছুক্ষণ পর চাল ও পুদিনাপাতার সঙ্গে দিন চার কাপ স্টক। পানি পুরোপুরি শুকিয়ে যাওয়ার আগে মাংসগুলো তুলে রাখুন। এবার ভাতটা অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল দিয়ে ঢেকে রাখুন। মাংসগুলো যে পাত্রে ওঠাবেন, সেটার মাঝখানে একটা বাটিতে তেল দিন। এতে একটা গরম কয়লা ছেড়ে দিন। কয়লা ছেড়ে দেওয়ার সঙ্গে সঙ্গে পুরো পাত্রটা অ্যালুমিনিয়াম ফয়েল দিয়ে আটকে দিতে হবে যাতে ধোঁয়া বাইরে বের হতে না পারে। ১০ মিনিট পর সেই মুরগি ভাতের হাঁড়িতে আবার দিয়ে নেড়েচেড়ে একটু দমে রাখতে হবে। পরিবেশনের সময় বাদাম ছিটিয়ে দিন।

সুইট বাসবুসা
সুইট বাসবুসাউপকরণ: সিরাপের জন্য: চিনি আড়াই কাপ, পানি ৪ কাপ ও লেবুর রস ২ টেবিল চামচ।
রান্নার জন্য: সুজি ১ কাপ, ময়দা ১ কাপ, নারকেল কোরানো ১ কাপ, ডিম ৩টা, বড় ১টা কমলার খোসা গ্রেট করা, ১ কাপ টক দই, ১ কাপ চিনি, আধা কাপ মাখন (ঘরের তাপমাত্রায়), ২ টেবিল চামচ বেকিং পাউডার ও ভ্যানিলা পাউডার ২ টেবিল চামচ।
প্রণালি: একটা পাত্রে ডিম ও চিনি ভালো করে ফেটে নিন। এবার দই আর মাখন দিয়ে নাড়ুন। এবার মিশ্রণটিতে নারকেল কোরানো, সুজি, ময়দা, বেকিং পাউডার ও ভ্যানিলা পাউডার মেশান। সব ভালো করে মাখানো হলে তাতে কমলার খোসা দিয়ে হালকা করে নেড়ে নিন। এবার বেকিং ট্রেতে ঢেলে ২০০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রার প্রি-হিট ওভেনে ১০ মিনিট বেক করুন। এবার ১৮০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেড তাপমাত্রায় ৩০ মিনিট বেক করুন। বেকিং শেষে ঠান্ডা করে বড় আকারের টুকরা করে নিয়ে ওপরে চিনির সিরাপ ঢেলে দিন। আবারও একটু ঠান্ডা করে ওপরে পেস্তা দিয়ে সাজিয়ে পরিবেশন করুন অ্যারাবিক সুইট বাসবুসা।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Anti-Spam Quiz: