06fb0cda8d2891c1efc3ee77ada4d882-Untitled-3

ফিরে আসুন সংগীতের ভুবনে

বিডিকষ্ট ডেস্ক

একজন মুক্তিযোদ্ধা এবং বহু কালজয়ী গানের স্রষ্টা লাকী আখান্দ্। সেই শিল্পী এখন গুরুতর অসুস্থ। তাঁকে নিয়ে এই লেখা

বাংলাদেশের সংগীতের ইতিহাসে সর্বাধিক শ্রুত গান নিয়ে মতবিরোধ থাকতে পারে। কিন্তু সবচেয়ে বেশি শোনা গানের তালিকা হলে ‘আবার এল যে সন্ধ্যা’ গানটি যে ওপরের দিকে থাকবে, এ নিয়ে কারও মতবিরোধ থাকার কথা নয়। লাকী আখান্দের সুর করা রোমান্টিক ঘরানার চমৎকার এই গানটি শোনেননি এমন মানুষ খুঁজে পাওয়া কঠিন। শুধুই কি রোমান্টিক? শোনামাত্রই মন ভালো করে দেওয়ার মতো একটি গান। নগর ছেড়ে সবুজ ও নীলিমার মিলনমেলায় প্রকৃতির কাছে ফিরে যাওয়ার আহ্বান পাওয়া যায় তাঁর গানের কথা, সুর, যন্ত্রসংগীতে।
লাকী আখান্দের অসাধারণ সৃষ্টির কয়েকটির উল্লেখ করা যাক। ‘এই নীল মণিহার’, ‘আগে যদি জানতাম’, ‘যেখানে সীমান্ত তোমার’, ‘কবিতা পড়ার প্রহর এসেছে’, ‘মামুনিয়া’সহ আরও কত গান!
লাকী আখান্দ্ বাংলাদেশের অন্যতম সেরা সুরকার, সংগীত পরিচালক ও গায়ক। ১৯৮৫ সালে সারেগামার ব্যানারে প্রকাশ পায় লাকী আখান্দের প্রথম একক অ্যালবাম লাকী আখান্দ্ (সেলফ্ টাইটেলড)। সেই অ্যালবামের উল্লেখযোগ্য কিছু গান হলো ‘এই নীল মণিহার’, ‘আমায় ডেকো না’, ‘রীতিনীতি কি জানি না’, ‘আগে যদি জানতাম’, ‘হৃদয় আমার’, ‘সুমনা’, ‘তোমার স্বাক্ষর আঁকা’।
লাকী আখান্দের সুরারোপে করা প্রতিটি গানের কথার ওপর সুরের যে প্রভাব, তা যে কাউকেই সহজে মুগ্ধ করে। সুর ও সংগীতায়োজনের নান্দনিক ও বৈচিত্র্যময় উপস্থাপনে তিনি কিংবদন্তি। সফট মেলোডি, মেলো-রক, হার্ড-রক—যেটাতেই হাত দিয়েছেন, সেটাই হয়ে উঠেছে অনন্য।
১৯৮৭ সালে ছোট ভাই হ্যাপি আখান্দের মৃত্যুর পরপর সংগীতাঙ্গন থেকে অনেকটাই স্বেচ্ছায় নির্বাসন নেন এই গুণী শিল্পী। মাঝখানে প্রায় এক দশক নীরব থেকে ১৯৯৮-এ পরিচয় কবে হবে ও বিতৃষ্ণা জীবনে আমার অ্যালবাম দুটি নিয়ে আবারও ফিরে আসেন সংগীতাঙ্গনে। প্রাণের টানে ফিরে আসেন গানের মাঝে। গত বছর চিকিৎসার জন্য থাইল্যান্ড গিয়েছিলেন দেশের কিংবদন্তিতুল্য এই শিল্পী। কিছুটা সুস্থ হয়ে ফিরেছেন চলতি বছরের মার্চে। কিন্তু এখন আবারও তাঁর অবস্থার অবনতি হয়েছে। চিকিৎসা চালিয়ে যাওয়ার জন্য সরকার ও ভক্তদের কাছে অর্থ-সহায়তাও চাইতে বাধ্য হয়েছেন এই শিল্পী।
আমরা চাই, লাকী আখান্দ্ আবারও সুস্থ হয়ে ফিরে আসুন সংগীতের ভুবনে। সংগীতের একজন নক্ষত্রকে আমরা যেন অবহেলায় হারিয়ে না ফেলি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Anti-Spam Quiz: